বাংলার স্বাধিনতা আন্দোলন

From BanglaWiki.org
Jump to: navigation, search
১৮৫৮ সালের বেঙ্গল প্রেইডেন্সি

১৭৫৭ সালে পলাশির যুদ্ধের পড় থেকে স্বাধিন বাংলা প্রতিষ্ঠার লক্ষে শতাব্দী ব্যাপি চলমান সকল বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলন ও সশস্ত্র সংগ্রাম কে বাংলার স্বাধিনতার আন্দোলন বলা হয় । ১৯৭১ সালে এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে বিপ্লবী বাংলার এক অংশ পূর্ব পাকিস্তান থেকে “বাংলাদেশ” নামে এক স্বাধিন বাঙালি রাষ্ট্র হিসাবে আত্বপ্রকাশ করলেও বাংলার অধিকাংশ জনগোষ্ঠী এখনো ভারত দ্বারা শাসিত। ১৭৫৭ সালে পলাশির ময়দান থেকে বাংলার যে স্বাধিনতা কুক্ষিগত হয়েছিল সেই স্বাধীনতা ২১৪ বৎসর পড় আসলেও এখন বৃহত্তর বাংলার পূর্ণ স্বাধিনতা হয়নি বলে বাঙালি জাতীয়তাবাদীরা বিশ্বাস করে ।

দক্ষিণ এশিয়ায় ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের রুপকার বলা হয় বাঙালি জাতীকে । সংগ্রামী আন্দোলনের চাপে ব্রিটিশরা ১৯৪৭ সালে ক্ষমতা হস্তান্তর করলেও প্রভাবশালী বাঙালি জাতীকে দুর্বল করতে বাংলাকে ভাগ করে এর শাসন কৃতিত্ব তুলে দেওয়া হয় ভারত ও পাকিস্তানের হাতে ।চাঙ্গা হয়ে উঠা ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনকে দুর্বল করতে প্রথম ১৯০৫ সালে বাংলা কে দুই ভাগ করার চেষ্টা করা হয়।


দক্ষিণ এশিয়ায় ব্রিটিশ বিরোধী রাজনৈতিক ও সস্রর আন্দোলনের রুপকার বাঙালি জাতি । যা পরবর্তীতে ব্রিটিশ শাসিত অন্যান্য দক্ষিণ এশিয়ার জাতীকে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে অনুপ্রাণিত করে ।